লালমোহন পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে মামলা

লালমোহন প্রতিনিধি: লালমোহন পৌরসভার মেয়র এমদাদুল হক তুহিনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে ভোলার স্পেশাল জজ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ওই মামলায় তার বিরুদ্ধে পৌরসভার নিয়মনীতি ভঙ্গ, ক্ষমতার অপব্যবহার, টেন্ডারবাজি, কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ না করে অর্থ আত্মসাতসহ অসংখ্য অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে প্রায় ৫৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শফিকুল ইসলাম বাদল এই মামলা দায়ের করেন।

সোমবার (৪ জানুয়ারি) ওই মামলাটি তদন্তের জন্য বরিশাল দুর্নীতি দমন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বরাবর পাঠায় আদালত।

মামলার বিবরণে লালমোহন পৌরসভার মেয়র এমদাদুল ইসলাম তুহিনের নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন টেন্ডারে অনিয়ম, নিজের শ্যালক রিয়াজকে ঠিকাদার দেখিয়ে টেন্ডারবাজি, বিভিন্ন ভূয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে পৌরসভার অর্থ লোপাট, পৌরসভার মার্কেটে স্ত্রীর নামে ক্লিনিক স্থাপন, প্রথমবার নির্বাচনী হলফনামায় উল্লেখিত সম্পত্তি থেকে ১০ গুণ বেশি সম্পদ অর্জন করা, জেলা পরিষদের খাল ভরাট করে নিয়মবহির্ভূতভাবে মার্কেট নির্মাণ, বিভিন্ন ব্যাংকে বিপুল পরিমাণ অর্থ জমা, পৌরসভার বিগত ৯ বছরের এডিবির অর্থ আত্মসাত করে বিদেশে স্ত্রী সন্তানের নামে ও বেনামে টাকা পাচার করাসহ অর্থ অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরা হয়।

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার ৭ জন কাউন্সিলর ও পৌর কর্মকর্তা কর্মচারীদেরসহ মোট ২৬ জনকে মামলায় স্বাক্ষী করা হয়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে লালমোহন পৌরসভার মেয়র এমদাদুল ইসলাম তুহিন জানান, লোকমুখে শুনেছি মামলা হয়েছে, তবে এখনো কোনও কপি পাইনি। মামলার মাধ্যমে লালমোহনে আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্রে মেতেছে একটি মহল। তারই জের ধরে কতিপয় বাহিনী পৌরসভায় এসে স্টাফদের হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। এ ব্যাপারে এমপি মহোদয়কে জানিয়েছি।